দিনে স্বস্তি রাতে কাঁপুনি

শেয়ার করুন

নিউজ ডেস্ক:

টানা ছয়দিন ধরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বিরাজ করছে পঞ্চগড়ে। কমেছে তাপমাত্রাও। বেড়েছে দিনের ও রাতের তাপমাত্রার পার্থক্য।

শুক্রবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয় পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। এ জেলায় বৃহস্পতিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বুধবার ৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, মঙ্গলবার ৭ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সোমবার ৭ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং রোববার ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। যা দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল।

তাপমাত্রা কমে আসার সঙ্গে সঙ্গে বেড়েছে শীতের প্রকোপ। শীতের তীব্রতা থাকছে সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত। উত্তুরে হাওয়া সরাসরি এ জনপদের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। সেই সঙ্গে ঘন কুয়াশায় ঢাকা পড়ে চারপাশ।

মাঝরাতে তাপমাত্রা কমে আসার পাশাপাশি হাড়কাঁপা শীত অনুভূত হয়। সকাল ৭টা থেকে ৮টা পর্যন্ত কুয়াশায় ঢাকা পড়ে পথ-ঘাট। এরপর দেখা মেলে সূর্যের। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে উত্তাপ বাড়তে থাকে। দিনে কিছুটা স্বস্তি মিললেও বিকেল গড়াতেই বাড়তে থাকে ঠাণ্ডা। 

এদিকে শীতের তীব্রতা বাড়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন খেটে খাওয়া লোকজন। শীতবস্ত্র না থাকায় খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন তারা। এরই মধ্যে জেলায় ২২ হাজার শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছে জেলা প্রশাসন। এছাড়া প্রত্যেক উপজেলায় ৩০ লাখ টাকা ভাগ করে দেয়া হয়েছে। সেই টাকায় শীতবস্ত্র বিতরণ করা হবে।

তেঁতুলিয়া আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের সিনিয়র আবহাওয়া পর্যবেক্ষক জিতেন্দ্রনাথ রায় বলেন, আগামী ২৮ ডিসেম্বর থেকে শৈত্যপ্রবাহের পূর্বাভাস রয়েছে। তাপমাত্রা আরো কমে আসার পাশাপাশি বাড়বে শীতের তীব্রতা। ঘন কুয়াশার সঙ্গে থাকবে ঠাণ্ডা বাতাসও। সূত্র: ডেইলী বাংলাদেশ

এম২৪নিউজ/আখতার